সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:১৮ পূর্বাহ্ন

ঝালকাঠি বাস শ্রমিদের উপর হামলার প্রতিবাদে বিভিন্ন রুটে বাস ধর্মঘট চলছে

ঝালকাঠি বাস শ্রমিদের উপর হামলার প্রতিবাদে বিভিন্ন রুটে বাস ধর্মঘট চলছে

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ

মধ্যরাতে বাস শ্রমিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে ও মহাসড়কে মাহিন্দ্রাসহ অবৈধ যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধের দাবিতে ঝালকাঠি থেকে বরিশালসহ বিভিন্ন রুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য বাস চলাচল বন্ধ ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনেও অব্যাহত রয়েছে। ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন মঙ্গলবার সকাল থেকে এ ধর্মঘটের ডাক দেয়। আকস্মিক বাস ধর্মঘটের কারণে ঝালকাঠি-বরিশাল, ঝালকাঠি-ভান্ডারিয়া, বরিশাল-খুলনা, বরিশাল-পিরোজপুর, বরিশাল-মঠবাড়িয়া, বরিশাল-পাথরঘাটা এই ছয় রুটের যাত্রীরা পড়েন ভোগান্তিতে। দুর্ভোগের শিকার অনেকেই সময় মতো গন্তব্যে যেতে না পেরে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। কেউ কেউ ভাড়ার মোটরসাইকেলে যাচ্ছেন ।

জেলা সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক বাহাদুর চৌধুরী জানান, মহাসড়কে থ্রি-হুইলার চলাচল বে-আইনি হলেও ঝালকাঠির আঞ্চলিক মহাসড়কে পুরোদমে চলছে অবৈধ মাহিন্দ্রা ও ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা। এর প্রতিবাদ করলে মাহিন্দ্রা গাড়ির মালিক ও চালকরা বিভিন্ন সময় বাস শ্রমিকদের ওপর হামলা, নির্যাতন ও বাসের যন্ত্রাংশ চুরি করে নেয়। বাস মালিক সমিতির যুগ্মসম্পাদক নাসির উদ্দিন আহমেদ জানান, সোমবার রাত ১২টার দিকে বরিশাল রূপাতলী বাসটার্মিনালে থাকা ঝালকাঠি মালিক সমিতির কয়েকটি বাসের যন্ত্রাংশ চুরি করে নেয় মাহিন্দ্রার মালিক ও চালকরা। প্রতিবাদ করলে শ্রমিকদের মারধর ও জীবননাশের হুমকি দেয়া হয়। এ ঘটনার বিচার ও মহাসড়কে অবৈধ মাহিন্দ্রা চলাচল নিষিদ্ধের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য ঝালকাঠির ওপর থেকে বিভিন্ন রুটের লোকাল বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়। ঝালকাঠি বাসমালিক সমিতি সূত্রে জানা যায়, ঝালকাঠি বাসমালিক সমিতির বর্তমানে ১০৬ টি বাস রয়েছে । এসব বাস সরাসরি শুধুমাত্র বর্তমানে ঝালকাঠি-বরিশাল এবং ঝালকাঠি-ভান্ডারিয়া রুটে চলাচল করে । এছাড়া ঝালকাঠি সমিতির বাস সমঝোতার ভিত্তিতে বরিশাল-খুলনা রুটে ৩ প্লাই (ট্রিপ) , বরিশাল-মঠবাড়িয়া রুটে ৫ প্লাই, বরিশাল-পাথরঘাটা রুটে ৫ প্লাই, এবং বরিশাল-পিরোজপুর রুটে ১০ প্লাই বাস চলাচল করে । ঝালকাঠি-কাঠালিয়া-আমুয়া, ঝালকাঠি-কাউখালি, ঝালকাঠি-নবগ্রাম এবং ঝালকাঠি-নলছিটি- মোল্লারহাট এই চার রুটে বেশ কয়েকবছর যাবত যাত্রী সংকট এবং রাস্তার কাজ চলার কারনে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে । এছাড়া বরিশাল মালিক সমিতির কাছ থেকে বিভিন্ন রুটে ন্যায্য প্লাই না পাওয়ায় ঝালকাঠি সমিতির সাথে বরিশাল সমিতির দ্বন্ধ রয়েছে । মূলত বরিশাল সমিতির ইন্ধনে মহিন্দ্রা শ্রমিকরা ঝালকাঠির বাসে হামলা ভাংচুর করে বলে দাবি ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির । ঝালকাঠি বাসমালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিলন মাহমুদ বাচ্চু বলেন, রূপাতলির সুমন মোল্লা নামে এক সন্ত্রাসীর নেতৃত্বে আমাদের বাস ভাংচুর এবং শ্রমিকদের মারধর করা হয় । আমরা সুমন মোল্লার বিচার এবং শ্রমিকদের নিরাপত্তার দাবিতে বরিশাল বিভাগীয় কমিশনারসহ সকল সরকারি দায়িত্বশীলদের কাছে আবেদন করেছি । বিচার না পাওয়া পর্যন্ত বাস চলাচল বন্ধ থাকবে ।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন







All rights reserved@KathaliaBarta-2021
Design By Rana