মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ১২:৪৭ পূর্বাহ্ন

হ্যাডম আছে বিধায় তো নেত্রী আমারে নমিনেশন দিছে : শাহজাহান ওমর

হ্যাডম আছে বিধায় তো নেত্রী আমারে নমিনেশন দিছে : শাহজাহান ওমর

হ্যাডম আছে বিধায় তো নেত্রী আমারে নমিনেশন দিছে : শাহজাহান ওমর

অনলাইন ডেস্ক:

জামিনে কারাগার থেকে বেরোনোর পরদিনই গতকাল বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হলেন বিএনপি নেতা মুহাম্মদ শাহজাহান ওমর। এক দিন আগেও তাঁর রাজনৈতিক পরিচয় ছিল বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান। তিনি এখন ঝালকাঠি-১ আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী।

শাহজাহান ওমর গতকাল ঝালকাঠি-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

গতকালই সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন করে তিনি নিজে নৌকা প্রতীকে তাঁর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার কথা জানান।

গতকাল রাজধানীর কারওয়ান বাজারের ইউটিসি ভবনে ওই সংবাদ সম্মেলনে শাহজাহান ওমর বলেন, তিনি বিএনপি থেকে পদত্যাগ করেছেন। আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। তারপর গতকাল আওয়ামী লীগ তাঁকে ঝালকাঠি-১ আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে। তিনি অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

বিএনপির নেতা হিসেবে শাহজাহান ওমরকে গত ৪ নভেম্বর রাতে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরদিন তাঁকে ঢাকার নিউমার্কেট থানার বাসে আগুন দেওয়ার একটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে হাজির করে পুলিশ। ওই মামলায় তাঁকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়।

গত বুধবার ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে জামিন পান শাহজাহান ওমর। সন্ধ্যার পরই কেরানীগঞ্জে ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি। শাহজাহান ওমরকে বুধবার জামিন দেওয়া হলেও একই দিনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসসহ আরও কয়েকজন শীর্ষ নেতার জামিন আবেদন নাকচ করে দেন আদালত।

মুক্তি পাওয়ার পরদিন গতকাল বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিলেন শাহজাহান ওমর। ঝালকাঠি-১ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুন। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বজলুল হককে মনোনয়ন দেয়। কিন্তু জেল থেকে বেরিয়েই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হলেন শাহজাহান ওমর।

আওয়ামী লীগে যোগদানের ঘোষণা দেওয়ার পর শাহজাহান ওমরকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিষ্কার করেছে বিএনপি। দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বহিষ্কারের এ তথ্য জানান।

১৯৯১ সালে পঞ্চম সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে হারিয়ে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন বিএনপি নেতা শাহজাহান ওমর। তারপর আরও দুবার বিএনপির হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। ২০০৩ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি সরকারের আইন প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছিলেন।

আরও পড়ুন : ঝালকাঠি-১ আসনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করছেন বিএনপি নেতা শাহজাহান ওমর

গতকাল সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শাহজাহান ওমর দাবি করেন, নির্বাচনে যাওয়ার শর্তে তাঁকে জেল থেকে ছাড়া হয়নি। তাঁর ভাষ্য, ‘৪৫ বছর বিএনপির সঙ্গে ছিলাম। এখন বিএনপিতে স্বস্তিবোধ করছি না। আমি এখন আর বিএনপির কেউ না।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গতকালই তাঁর দেখা হওয়ার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শাহজাহান ওমর বলেন, ‘সাক্ষাৎ হতেই পারে। আমি তো প্রধানমন্ত্রী বা বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে কখনো কোনো বক্তৃতা করি নাই। বরং আমি ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাসায় অনেক দিন ঘুমিয়েছি।’

তৃণমূল বিএনপি বা বিএনএমে যোগ না দিয়ে কেন আওয়ামী লীগে যোগ দিলেন—এমন প্রশ্নের জবাবে শাহজাহান ওমর বলেন, ‘এগুলো তো ফকিন্নি পার্টি। দু-তিন কোটি টাকা পাইছে, দাঁড় করাইছে। আর হ্যাডম থাকলে ডাইরেক্ট (সরাসরি) যাও। যেমন আমি দুপুর ১টার সময় গেছি, ২টার সময় নমিনেশন। হ্যাডম আছে বিধায় তো নেত্রী (শেখ হাসিনা) আমারে নমিনেশন দিছে ১ ঘণ্টার ভিতরে। আর যেটা ছিল, ওইটারে দিছে কাইট্টা। আই গট অ্যা হ্যাডম।’

শাহজাহান ওমর ছাড়াও বিএনপির সদ্য বহিষ্কৃত নির্বাহী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার আবুল কাশেম ফখরুল স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ঝালকাঠি-১ আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। আবুল কাশেম ফখরুল মানবতাবিরোধী অপরাধের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর আইনজীবী ছিলেন।

বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের ঘোষণা দিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বিএনপির সাবেক এমপি জিয়াউল হক মোল্লা। এ ঘটনায় গতকাল সন্ধ্যায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে তাঁর কুশপুতুল দাহ করেছে নন্দীগ্রাম পৌর বিএনপি।

 

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন







All rights reserved@KathaliaBarta 2023
Design By Rana